Search

দ্য ডিফারেন্স ইঞ্জিন




দ্য ডিফারেন্স ইঞ্জিন / ব্রুস স্টার্লিং ,উইলিয়াম গিবসন

The Difference Engine / Bruce Sterling, William Gibson


১৯৯০ সালে প্রকাশিত ব্রুস স্টার্লিং এবং উইলিয়াম গিবসনের যৌথ প্রয়াসে রচিত এই উপন্যাসটি স্টিমপাঙ্ক জনরের অন্যতম মাইলফলক । কাহিনীর পটভূমিকা উনবিংশ শতাব্দীর এক কল্পনার লণ্ডন । এই কল্পিত ইতিহাসে চার্লস ব্যাবেজ সফল ভাবে তাঁর যান্ত্রিক কম্পিউটার ডিফারেন্স ইঞ্জিনটি নির্মাণ করে ফেলেছেন, এবং তার ফলে ব্রিটেনে শিল্প বিপ্লবের পাশাপাশি এসেছে তথ্য বিপ্লবের জোয়ার । এই দুইয়ের সংমিশ্রণে সমাজে এসেছে এক তুমুল আড়োলন, কাহিনির কল্পিত ডিজরায়েলি যাকে বলেন , 'tumults of the mind'। ইণ্ডাস্ট্রিয়াল যুগ আর ইনফরমেশন যুগের যুগপৎ প্রভাবে এই ডিস্টোপিয়ান কল্পনায় রাজনীতি আর সমাজে প্রাকৃতিক দুর্যোগের মতোই চতুর্দিকে কেবল 'anarchy and chaos' । এখানে ব্রিটেন শাসন করে ইন্ডাস্ট্রিয়াল র‍্যাডিকাল পার্টি, তার শীর্ষ নেতা লর্ড বাইরন । জমিদার শ্রেণীর পারিবারিক লর্ড এবং শিল্পায়ানের বিরুদ্ধে থাকা কারিগর আর হস্তশিল্পী লুডাইটদের নিশ্চিহ্ণ করে ক্ষমতায় এসেছে তারা, তাদের বাধা দিতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন ডিউক অফ ওয়েলিংটন ।


সমাজের তিনটি সম্পূর্ন ভিন্ন স্তর থেকে আসা তিনটি মানুষের দৃষ্টিকোণ থেকে বলা হয়েছে এই কাহিনি । একজন

দেহপসারিণী, একজন বৈজ্ঞানিক এবং একজন সরকারি গুপ্তচর । তাদের চোখ দিয়ে দেখানো এই কল্পিত দুনিয়ায় আমেরিকা কয়েক ভাবে বিভক্ত , বাষ্প চালিত কম্পিউটার প্রোগ্রাম করে ক্ল্যাকাররা, এবং নাগরিকদের যাবতীয় তথ্য কুক্ষিগত করে ফেলেছে সরকার। আর এই কল্পনার পটভূমিকাকে পেছনে রেখে স্টার্লিং এবং গিবসন তুলে ধরেন একের পর এক সামাজিক এবং রাজনৈতিক প্রশ্ন, যা এই কাহিনি রচনার তিরিশ বছর বাদেও প্রাসঙ্গিক ।


#কল্পবিজ্ঞান

#কল্পবিজ্ঞান_সাহিত্য

17 views0 comments