Search

দ্য অ্যালকেমি অফ স্টোন

দ্য অ্যালকেমি অফ স্টোন / একাটেরিনা সেডিয়া

The Alchemy of Stone / Ekaterina Sedia


২০০৮ সালে প্রকাশিত রুশ লেখিকা একাটেরিনা সেডিয়া'র 'দ্য অ্যালকেমি অফ স্টোন' স্টিমপাঙ্ক শৈলির একটি অন্যতম উপন্যাস । কাহিনীর পটভূমি আইওনা নামে এক কাল্পনিক শহর, যার চাল-চরিত্র অনেকটা ভিক্টোরিয়ান যুগের লন্ডনের মতো । এ শহরের পার্লামেন্টে ক্ষমতা দ্বিধাবিভক্ত, যার একদিকে রসায়নবিদ অ্যালকেমিস্টরা আর অন্যদিকে যন্ত্রবিদ মেকানিস্টরা ।


কাহিনির মুখ্য চরিত্র ঘড়িকলে চলা এক যন্ত্রমানবী, নাম ম্যাটি । তার সৃষ্টিকর্তা যন্ত্রবিদ লোহারি তাকে মুক্ত করে দিয়েছে, স্বাধীন ম্যাটি বেছে নিয়েছে অ্যালকেমিস্টের পেশা ।


শহরে রাজনৈতিক পরিস্থিতি জটিল হয়, পার্লামেন্টের দ্বন্দ্ব নেমে আসায় রাস্তায়, মেকানিস্টদের আবিষ্কৃত যন্ত্রে কাজ হারানো মানুষের মধ্যে ধূমায়িত হয় অসন্তোষ, তার মধ্যে মাথা গলায় র‍্যাডিক্যালদের একটি দল, যারা পুরনো সমাজ ব্যবস্থা পালতে দিতে চায় । সেই রাজনৈতিক টানাপোড়েনে ক্রমে জড়িয়ে পড়ে ম্যাটি।


আর এই সবের পটভূমিকায় লেখিকা তুলে ধরেন কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন । নারীর আদলে, নারীর পোষাকে নির্মিত ম্যাটি নিজেকে নারী ভাবতেই অভ্যস্ত, কিন্তু সমাজের কাছে সে কি সত্যিই নারী ? যখন ম্যাটির সংস্পর্শে আসে কোন মানব নারী ‘and her abundance of flesh' তখন ম্যাটি তার নিজের শরীর - 'her own small, long-limbed body of metal and wood, jointed and angular’ - সমন্ধে সচেতন না হয়ে পারে না । খাতায়কলমে ম্যাটি স্বাধীন বটে, কিন্তু চলতে ফিরতে গেলে তার ঘড়িকলে নিয়মিত দম দিতে হয়, আর সেই দম দেওয়ার চাবি লোহারি রেখে দিয়েছে নিজের কাছে । ম্যাটির স্বাধীনতার পরিধি তাহলে কতদূর অবধি ? যে স্রষ্টা তাঁর সৃষ্টির জীয়নমরণের কাঠিটি নিজের দখলেই রেখে দেন সেই স্রষ্টা আর তাঁর সৃষ্টির মাঝে আছে টানাপোড়েনের কোন দ্বৈতবাদ ?


জেণ্ডার আইডেন্টিটি, রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র, মানব ও যন্ত্রমানবীর প্রেমের পরিণতি, পরিচিত গণ্ডির বাইরের নানা বিষয় তুলে এনে একাটেরিনা সেডিয়া তাঁর লেখার মাধ্যমে আরো বিস্তৃত করেছেন স্টিম পাঙ্ক শৈলির দিগন্ত ।




#কল্পবিজ্ঞান

#কল্পবিজ্ঞান_সাহিত্য

9 views0 comments

Recent Posts

See All